জাপানের দেবী সরস্বতী দেবী বেনজৈতেন।

জাপানের দেবী সরস্বতী দেবী বেনজৈতেন।

বৈদিক জ্যোতিরূপা দেবী সরস্বতী ও নদী সরস্বতী সম্মিলিত ভাবে জ্ঞান, নিষ্কলুষ, স্বচ্ছতা, বিদ্যা ও ললিতকলার অধিষ্ঠাত্রী দেবীরূপে পুরাণ, তন্ত্র ও সাহিত্যেই হিন্দু  সংস্কৃতির শ্রদ্ধা ও ভক্তির অধিকারিণী হয়ে পূজিত হয়েছেন না, বরং দেবীর আরাধনার বিস্তৃতি ভারতবর্ষের সীমা অতিক্রম করে দেশ দেশান্তরে প্রসারিত। এই ভাবেই তিব্বত, চীন হয়ে দেবীর আরাধনা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে জাপানে।

জাপানের দেবী সরস্বতী দেবী বেনজৈতেন।
জাপানের দেবী সরস্বতী দেবী বেনজৈতেন।

একবিংশ শতকে জাপানের বিভিন্ন প্রদেশে দেবী সরস্বতী শুধু যে কেবল জ্ঞান,বিদ্যা কৃষ্টির দেবীরূপে পূজিত হচ্ছেন তা নয়, বরং জাপানের টোকিয়াে, কামাকুরা, কিয়ােটো ইত্যাদি স্থানে ঐশ্বর্য বা ধনপ্রাপ্তির দেবীরূপেও সমান ভাবে শ্রদ্ধার সঙ্গে পূজিত হচ্ছেন। পণ্ডিত অমূল্যচরণ তার সরস্বতী গ্রন্থে বলেছেন যে যব্বীপে প্রাপ্ত পদ্মাসীনা সপ্ত সরস্বতী বীণাহস্তা বীণাবাদিনী সরস্বতী মূর্তি; তিব্বতে ব্রজধারিণী ময়ূর বাহনা ব্রজসরস্বতী ও বীণাপাণি সরস্বতী; জাপানে বেনতেন নামধারিণী সর্বাসনাদ্বিজা বীণাপানি, অষ্টভূজা হঞ্চিাবেনতন সরস্বতীরবহির্ভারতে পাড়ি দেওয়ার অভ্রান্ত সাক্ষ্য বহন করে।

জাপানে বেনতেন বা বেনজৈতেন আকৃতি সুন্দর, ভক্তদের তিনি জ্ঞান, বাস্মিতা, সঙ্গীত, সম্পদ, রণজয় এবং নদীর জলপ্রবাহ প্রদান করেন। সমগ্র জাপানে তিনি অত্যন্ত জনপ্রিয় দেবী সকল ভক্তের প্রার্থনা পূর্ণ করেন, তার বিউয়া নামক বাদ্যযন্ত্র বীণা অত্যন্ত প্রিয়। জাপানে বেনতেন দ্বিবিধরূপে পূজিত হন। এক রূপে তিনি বীণাবাদনতার সুন্দরী, অপররূপে তিনি ভয়ঙ্করী যােদ্ধাবেশ ধারিণী অসি হস্তা,পদতলে কচ্ছপ ও সর্প।

জাপানে দ্বিভুজা বেনতেনের মন্দিরগুলি হলাে এনােশিমাে জিনজা, কামাকুরা, রকুহারা মিতশুজি, কিয়ােটো, তাকাহাটা ফুড়াে মন্দির টোকিও।

অষ্টভুজা হাপ্লিবেনতেন রূপে এনেসিমজিজও গােকুজি, টোকিও, কোনজি, সাইজো মন্দিরে পূজিত হন রণজয় কামনার্থে। এখানে দেবীর হাতে থাকে ধনু, তরবারি, কুঠার, পাশ, বাণ, বর্শা, দীর্ঘ দণ্ড ও লােহচক্র। ওসাকায় বেনতেনের আধুনিক মন্দির বেনতেনশু এখন পৃথিবীর সর্বোচ্চ সরস্বতী মন্দির।

দেবী যেমন বীণাপাণী রূপে পূজিত হবার জন্য এনােসিমজিজও মন্দিরের প্রবেশ দ্বারে রয়েছে  বিউয়া বা বীণা, তেমনি নদী রূপেও পূজিত হন। বৃহতবীণা সদৃশ্য এক জলাধার লেক বিউয়া বা কিয়ােটোতে অবস্থিত। মানব সভ্যতার উষালগ্ন থেকে ভারতবর্ষে যে ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের জন্ম হয়েছে তা বহির্ভারতে উদিত সূর্যের দেশ জাপানে আজও সযত্নে লালিত ও পালিত। যেখানে প্রযুক্তি ও উৎকর্ষতার ঘটেছে মেলবন্ধন।

লিখেছেনঃ সৌমেন নিয়ােগী

Previous
Next Post »