পেটের আলসার এর লক্ষণ।

পেটের আলসার এর লক্ষণ।

অনেকেরই গ্যাসট্রাইটিসের সমস্যা হলে একটু অ্যান্টাসিড বা ব্যথা বাড়লে ডাইসাইক্লোমিন বা অ্যান্টিস্প্যাসমােডিক জাতীয় - কোনও ওষুধ খেয়ে সমস্যার আপাতত সমাধান করতে হয়। কিন্তু এই করতে করতে কখন যে আলসার তৈরি হয়ে যায়, আমরা তা বুঝতেই পারি না। পেটের আলসার হলাে পাকস্থলী ও ক্ষুদ্রান্ত্রের স্তরে সৃষ্ট এক ধরনের ক্ষত্ব যার জন্য ভেতরে রক্তপাত বা মাত্রাতিরিক্ত সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে। তাই সময়  থাকতেই সচেতন হতে হবে। নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি দেখলে সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে।

Symptoms of abdominal ulcer
পেটের আলসার এর লক্ষণ ।

১। ঘন ঘন পেটের উপরদিকটায় ব্যথা :

ইউনিভার্সিটি অব শিকাগাের গ্যাস্ট্রোএন্টেরােলজি ভািগের চিকিৎসক ডাঃ নীল সেনগুপ্তের মতে, আলসারের সবচেয়ে সাধারণ উপসর্গ হলাে পেটের উপরদিকটায় মাঝবরাবর ক্রাম্পের মতাে ব্যথা। খাদ্যনালীর যে কোনও জায়গায় আলসার হতে পারে। তবে অনেকেই ভেবে নেন যে পাকস্থলী বা ক্ষুদ্রান্ত্রে  হয়েছে। যেখানে ব্যথা সেখানে ক্ষত হবে। এমনটা সব সময় নাও মিলতে পারে। আলসারের জন্য হালকা থেকে তীব্র পেট ব্যথা হতে পারে, সঙ্গে তীব্র জ্বালাপােড়ার অনুভূতি মনে হয় সেখান থেকে কিছু বেরিয়ে গেলে আরাম হবে। প্রায়ই এরকম ব্যথা হলে মারাত্মক কিছু হওয়ার আগে পরীক্ষা করুন।

২। গা বমি ভাব বা বমি হয়ে যাওয়া। :

পেটে আলসারের প্রাথমিক পর্যায়ে যে সকল উপসর্গ থাকে, তার মধ্যে অন্যতম প্রধান বমি। কেননা এর ফলে পাকস্থলী বা অন্ত্র থেকে যেসব উৎসেচক নিঃসরণ হয়, তাতে নানা রদবদল ঘটে। আলসারের একটি মারাত্মক উপসর্গ হল খাবার খাওয়ার পর পেট ব্যথা বা তৈলাক্ত, চর্বিযুক্ত, জাংফুড খেলে গা বমি হতে থাকে আর যাও বা খাওয়া হলাে মনে হতে থাকে কতক্ষণে তা বমি করে ফেলব। বমি হলেও , সঙ্গে পেট ব্যথা থাকলে আইবুপ্রােফেন বা অ্যাসপিরিনের মতাে পেইনকিলার তখন খাবেন না, কেননা এটি সমস্যাকে আরও বাড়িয়ে দেবে। ডাঃ সেনগুপ্তের মতে, এসব ধরনের উপসর্গের ক্ষেত্রে ওভার দ্য কাউন্টার বমির ওষুধ (দোকান থেকে প্রেসক্রিপশন ছাড়া) কিনে খেলে সমস্যা বাড়াবে বই কমবে না।

৩। পায়খানার সঙ্গে রক্তপাত :

অনেকেরই কালাে মল হয়, তার অর্থ দুটো হয় কোষ্ঠকাঠিন্য, কিংবা মলের সঙ্গে রক্ত যাওয়া। যদি জি আই ট্র্যাক্ট (মানে খাদ্যনালী) থেকে রক্তপাত হয়, সেই সঙ্গে বমি, পাকস্থলী বা বুকে ব্যথা হয়, তাহলে আলসার সুনিশ্চিত করতে চিকিৎসকরা আপার ট্র্যাক্টের মানে খাদ্যনালীর উপরি  অংশের এন্ডােস্কোপি করার পরামর্শ দেন। হতে পারে যাকে আপনি আলসার ভাবছেন তা হেমােরয়েড বা কোলন ক্যান্সারের প্রাথমিক লক্ষণ। তাই রক্ত যাওয়ার আসল কারণটা খুঁজে বের করতে ডাক্তার দেখাতেই হবে।

৪। খাওয়ার পরেই বুক জ্বালা :

হার্টবার্ন শব্দটা এখন চারপাশে বেশি ব্যবহৃত হয়, যার অর্থ বুকজ্বালা। বুকের মধ্যে মনে হয় খাবার খাওয়ার পরেই একটা চাপা জ্বালাধরানাে অনুভূতি। যা কিছুই খান না কেন, যদি আপনার বারবার বুক জ্বালা হয়, এর জন্য দায়ী হতে পারে গ্যাস্ট্রিক আলসার। বেশিরভাগ আলসার রােগীই একটু গুরুপাক খাওয়ার পর তীব্র বুকব্যথা অনুভব করেন, সঙ্গে হার্টবার্ন, ইনাে বা পেপফিজ জাতীয় ঢেকুর তােলার ওষুধ খেয়ে সাময়িক স্বস্তি মিললেও এটা পাকাপাকি উপশম নয়।


৫। পেট যখন স্বাভাবিকের থেকে বেশি ফাঁপে :

মাঝে মধ্যে পেট ফাঁপা সবারই হয়। কিন্তু প্রায়ই হচ্ছে, পেট ফুলে থাকছে, তাহলে তা আলসার বা ফ্যাটি লিভারের মতাে অসুখের দিকে ইঙ্গিত করতে পারে। প্রায়শই পেট ফেঁপে থাকছে, অল্প খেলেই মনে হচ্ছে অনেকটা খেয়ে ফেলেছি, এগুলি আলসারের প্রাথমিক উপসর্গ। অনেকে এর থেকে কোমরে ব্যথাও অনুভব করেন। অবশ্য পর্যাপ্ত জল না খেলেও পেট ফাপা হয়।

৬। মুখে রুচি নেই, সঙ্গে বদহজম : 

গ্যাসট্রিক আলসার নীরবে যদি আপনার শরীরে বাড়তে থাকে, তাহলে একটা সময়ের পর খাওয়ার রুচি আর ইচ্ছে দুটোই কমে যায়। সঙ্গে ওজন কমে যাওয়ার সমস্যা থাকলে ধরতে হবে অন্ত্রের কোনও সমস্যা হয়েছে। অনেকে বলেন নির্দিষ্ট খাবার খাওয়া সত্ত্বেও ওজন কমছে। আলসার নিজেই ওজন কমাতে পারে।

৭। খাওয়ার কিছুক্ষণ পর থেকেই মনে হয় পেট খালি : 

এটা তাে খুবই সাধারণ একটা উপসর্গ। নাভি বা বুকের মাধ্যবর্তী স্থানে বিশেষত প্যাংক্রিয়াসের জায়গাতে খাবার খাওয়ার আধঘণ্টা পর থেকে একটা অস্বস্তি শুরু হয় এবং তখন মনে হয় খানিকটা খেলে এই সমস্যা বুঝি বা কমবে। খাবার খেলে ব্যথা চলে যায়। এটি পাকস্থলী আলসারের কারণে হয়। তবে ক্ষুদ্রান্তের নীচে আলসার হলে খাওয়ার পরও চিনচিনে একটা ব্যথা হতে থাকে। হােমিওপ্যাথি চিকিৎসায় পেটের আলসার নিরাময় সম্ভব।

ডাঃ পার্থসারথি মল্লিক।
যােগাযােগঃ ৯৮৩০৫০২৫৪৩

Previous
Next Post »