ভোট পুজো - একটি বাস্তব চিত্র। Election Pujo

২০০৯=১৪০০কোটি টাকা(প্রায়)।
২০১৪=৩৫০০কোটি টাকা(প্রায়)।
২০১৯=৫০০০কোটি টাকা(প্রায়)।
কি ভাবছেন,কিসের হিসেব এগুলো?এই সব টাকাই লোকসভা ভোটে খরচ করেছে আমাদের জাতীয় নির্বাচন কমিশন।। গুগুলে গিয়ে যাচাই করে নিতে পারেন।।যে দেশে ২৩.৬শতাংশ মানুষ দরিদ্রসংখার নিচে বসবাস করে,সেই দেশে ভোটের জন্য এত খরচ সত্যিই চোখে লাগার মত।।

ভোট পুজো
ভোট পুজো

দাড়ান এখনো অবাক হওয়ার অনেক বাকি আছে।আপনি জানলে আরও অবাক হবেন যে ২০১৪সালের লোকসভা ভোটে ভারতবর্ষের সমস্ত রাজনৈতিক দল গুলো মিলে খরচ করেছে ৩২০০০কোটি টাকা(প্রায়),যেটা এই লোকসভা ভোটে(election) বেড়ে দাড়িয়েছে ৫০০০০কোটি টাকায়(প্রায়)।।সত্যিই বিচিত্রময় দেশ এই ভারতবর্ষ।।

আমরা কখনো ভেবে দেখিনি যে এসব দলগুলি কোথা থেকে এত টাকা পাই,দলগুলির ইনকাম অফ সোর্স কি?আমাদের দেশের অনেক ছোট বা মাঝারি মাপের কোম্পানি বা সংস্থার বার্ষীক টার্নওভার এত টাকা নয় যত টাকা এক একটা রাজনৈতিক দল ভোটে খরচ করে।।কোথা থেকে আসে এদের কাছে এতো টাকা?একটা দল ৫বছর রাজত্ব করার পরেই সেই দলের ফান্ড কি করে এতো ফুলেফেপে উঠে?ভারতের আয়কর দফতর কেন এসব রাজনৈতিক দল গুলোর কাছ থেকে ইনকাম ট্যাক্স নেয় না?এরা কি সমাজসেবা করে নাকি নিজের সেবা করে।।


দেখেছেন কখনো যে অমুক হাসপাতাল তৈরি করেছে তমুক দল বা এই রাস্তা তৈরি হয়েছে তমুক দলের টাকায়।বা কখনো শুনেছেন কোন রাজনৈতিক দল কোন পাড়া গ্রামে বিদ্যুতের পোল বসিয়ে দিয়েছে বা যেখানে জলের আকাল সেখানে জলের কল বসিয়েছে,কখনওই এসব শুনতে পাবেন না।।কারন ওরা ওদের দলের ফান্ড বড় করবে আর নিজেদের আখের গুছিয়ে একদিন ক্ষমতা শেষ হবে তখন ঠিক কেটে পরবে।আর মাথা চাপড়াবো আমরা,সাধারণ জনগন।।

ভালবাসার বাংলা এস এম এস


যে কোন কিছু তৈরি হয় সরকারের টাকায় আর সেই টাকা সরকার আমাদের দেওয়া ট্যাক্স থেকেয় আয় করে।এই নেতা আমাদের এই রাস্তা টা করেছে বা অমুক মন্ত্রি আমাদের বাড়ি বানানোর টাকা দিয়েছে এসব কথা গুলো আমরা ভুল বলি।ওই নেতা বা ওই মন্ত্রি যে টাকা টা দিয়ে রাস্তা বানিয়েছে বা বাড়ি বানিয়ে দিয়েছে সেই টাকা টা ওনার পৈত্রিক সম্পত্তি নয়,আমাদের করের টাকা।

দেখবেন ক্ষমতাসীন দলের এম.পি,এম.এল.এ বা সাধারন একজন পৌর কাউন্সিলর বা একজন পঞ্চায়েত মেম্বার এরা ৫বছরের মধ্যে কোটি কোটি টাকার মালিক হয়ে যাই??কারন বেশিরভাগ জনপ্রতিনিধিই নিজের আখের গোছাতে রাজনীতি করেন সমাজসেবার জন্য নয়।।

ভবতোষ ঘোষ - একটি অমাবস্যা রাতের গল্প


এবার একটু অন্য দিকে নজর দেওয়া যাক।।বিশেষত ভারতবর্ষের ৩টি রাজ্যে(উঃপ্রদেশ,বিহার,পঃবঙ্গ)যেকোন ভোটে বেশি খুনোখুনি হয়,অনেকের জীবনহানি ঘটে,অনেকে আহত হয়।তারপরেও এসব রাজ্য গুলোই ভোটে কেন সব বুথে কেন্দ্রীয়বাহিনী দেওয়া নিয়ে টালবাহানা করা হয়,কেন প্রিসাইডিং অফিসার এবং পোলিং অফিসার এদের জীবন হাতে করে ভোট করতে বাধ্য করা হয়?কেন সমস্ত ভোটকর্মীদের জীবন বিমা করিয়ে দেওয়া হয়না?যদি কোন ভোটকর্মীর জীবনহানি ঘটে এবং তার বাড়িতে চাকুরিযোগ্য কেউ না থাকে তাহলে সেই পরিবারটার কি পরিণতি হবে ভেবে দেখেছেন কখনো নির্বাচন কমিশনার??সর্বপরি কেন্দ্রীয়বাহিনী থাকলে আমরা সবাই আমাদের নিজেদের ভোট টা নিজেরা দিতে পারবো।।

সবশেষে একটাই প্রার্থনা ভোট(election) করুন কিন্তু ভোটের জন্য এভাবে টাকা খরচ বন্ধ করুন।।

লিখেছেন Dipankar Bhattacharya

আপনারা যদি কোন লেখা আমাদের ওয়েবসাইট এ পাঠাতে চান তাহলে নিচের লিংক এ ক্লিক করুন
Previous
Next Post »